বাংলা একাডেমি প্রণীত প্রমিত বাংলা বানানের নিয়ম

39
Advertisement

বাংলা একাডেমি প্রণীত প্রমিত বাংলা বানানের নিয়ম



১। বাংলা একাডেমি প্রণীত প্রমিত বাংলা বানানের পাঁচটি নিয়ম লেখ।অথবা, আধুনিক বাংলা বানানের পাঁচটি নিয়ম লেখ।

উত্তর: নিম্নে বাংলা একাডেমি প্রণীত বাংলা বানানের পাঁচটি নিয়ম উল্লেখ করা হলো:
i. বাংলা ভাষায় ব্যবহৃত তৎসম বা সংস্কৃত শব্দের বানান অপরিবর্তিত থাকবে। তবে, যেসব শব্দে ই, ঈ বা উ, ঊ উভয় শুদ্ধ কেবল সেসব শব্দে ই বা উ এবং তার কার চিহ্ন ( ি) বা ( ু ) হবে।
যেমন—কিংবদন্তি, ধরণি, শ্রেণি, পদবি, রচনাবলি ইত্যাদি।
ii. রেফের পর ব্যঞ্জনবর্ণের দ্বিত্ব হবে না। যেমন— কর্ম, কার্য, সূর্য ইত্যাদি।
iii. সন্ধির ক্ষেত্রে ক খ গ ঘ পরে থাকলে পূর্ব পদের অন্তস্থিত ম্ স্থানে অনুস্বার ( ং ) হবে। যেমন—অহম্ + কার = অহংকার, সম্ + গীত = সংগীত ইত্যাদি।
iv. শব্দের শেষে বিগর্স (ঃ) থাকবে না। যেমন— মূলত, কার্যত, প্রথমত, প্রধানত, প্রায়শ ইত্যাদি।
v. সকল অতৎসম (তদ্ভব, দেশি, বিদেশি, মিশ্র) শব্দে কেবল ই, উ এবং এদের কারচিহ্ন ( ি) বা ( ু ) ব্যবহৃত হবে। যেমন—আরবি, আসামি, ইংরেজি, বাঙালি, সরকারি, চুন ইত্যাদি।



২। বাংলা একাডেমি প্রমিত বাংলা বানানের নিয়ম অনুসারে তৎসম শব্দের যেকোনো ৫টি নিয়ম লেখ।
উত্তর : প্রমিত বাংলা বানানের নিয়ম অনুসারে তৎসম শব্দের ৫টি নিয়ম দেওয়া হলো :
i. বাংলা ভাষায় ব্যবহৃত তৎসম বা সংস্কৃত শব্দের বানান অপরিবর্তিত থাকবে। তবে, যেসব শব্দে ই, ঈ বা উ, ঊ উভয় শুদ্ধ কেবল সেসব শব্দে ই বা উ এবং তার কার চিহ্ন ( ি) বা ( ু ) হবে।
যেমন—কিংবদন্তি, ধরণি, শ্রেণি, পদবি, রচনাবলি ইত্যাদি।
ii. রেফের পর ব্যঞ্জনবর্ণের দ্বিত্ব হবে না। যেমন— কর্ম, কার্য, সূর্য ইত্যাদি।
iii. সন্ধির ক্ষেত্রে ক খ গ ঘ পরে থাকলে পূর্ব পদের অন্তস্থিত ম্ স্থানে অনুস্বার ( ং ) হবে। যেমন—অহম্ + কার = অহংকার, সম্ + গীত = সংগীত ইত্যাদি।
iv. শব্দের শেষে বিগর্স (ঃ) থাকবে না। যেমন— মূলত, কার্যত, প্রথমত, প্রধানত, প্রায়শ ইত্যাদি।
v. সংস্কৃত ইন্ প্রত্যায়ান্ত শব্দের দীর্ঘ ঈ-কারান্ত রূপ সমাসবদ্ধ হলে সংস্কৃত ব্যাকরণের নিয়ম অনুযায়ী সেগুলোতে হ্রস্ব ই-কার হয়। যেমন—গুণী-গুণিজন, প্রাণী-প্রাণিবিদ্যা, মন্ত্রী-মন্ত্রিপরিষদ ইত্যাদি।



৩। বাংলা একাডেমি প্রণীত বাংলা বানানের নিয়ম অনুসারে অ-তৎসম শব্দের বানানের পাঁচটি নিয়ম লেখ।
উত্তর : বাংলা বানানের নিয়ম অনুসারে অ-তৎসম শব্দের পাঁচটি নিয়ম নিম্নরূপ :
i. অ-তৎসম শব্দের বানানে ণ ব্যবহার করা হবে না। যেমন— ইরান, কান, কোরান, গভর্নর ইত্যাদি।
ii. সকল অ-তৎসম ( তদ্ভব, দেশি, বিদেশি) শব্দে কেবল ই-কার ব্যবহৃত হবে। যেমন—বাড়ি, স্প্রিং, পাখি, শাড়ি ইত্যাদি।
iii. বিশেষণবাচক আলি প্রত্যয়যুক্ত শব্দে ই-কার হবে। যেমন—বর্ণালি, গীতালি, সোনালি ইত্যাদি।
iv. হস-চিহ্ন যথাসম্ভব বর্জন করা হবে। যেমন—কলকল, করলেন, কাত, চট, ঝরঝর ইত্যাদি।
v. ইলেক বা লোপ চিহ্ন যথাসম্ভব বর্জন করা হবে। যেমন—ব’লে> বলে, হ’য়ে> হয়ে, দু’জন> দুজন ইত্যাদি।



এ এস এম সাইফুল্লাহ বায়েজীদ

সহকারী অধ্যাপক,

বিএএফ শাহীন কলেজ চট্টগ্রাম।

আরও দেখুন> রেইনকোট গল্পের জ্ঞানমূলক প্রশ্ন